Beta

সাভারে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন, মামলা

১৬ এপ্রিল ২০১৮, ১৩:২২

সাভারের আশুলিয়ায় বিভিন্ন বাসাবাড়িতে অবৈধভাবে নেওয়া প্রায় চার হাজার গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করছে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। টানা দশম দিনের মতো তিতাসের এই অভিযান চলছে।

আজ সোমবার সকালে আশুলিয়ার টঙ্গাবাড়ী, বড় আশুলিয়া, রুস্তমপুর, পাড়াগ্রাম, ঠাকুরপাড়া ও খেজুরবাগান এলাকায় অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার অভিযান চলে।

সাভার তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপক (জোবিঅ) প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন কাজে প্রায় ৯০ জন কর্মী অংশ নেন।

এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় এক বছর আগে আশুলিয়ার এসব এলাকায় মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে প্রতিটি বাসাবাড়িতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেয় আশুলিয়ার চানগাঁও এলাকার মাসুদুর রহমান সিপাই। আজ সকাল থেকে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ ওই এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে ১২টি মূল পয়েন্ট থেকে মাটির নিচে থাকা গ্যাস সরবরাহের কয়েক হাজার পাইপ উদ্ধার করে। পরে ব্যবহৃত রাইজার খুলে নিয়ে লাইনগুলো সিলগালা করে দেওয়া হয়।

এই অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়ার অভিযোগে আজ সকালে মাসুদুর রহমান সিপাইকে প্রধান আসামি করে ৪৬ জনের নামে আশুলিয়া থানায় মামলা দায়ের করে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ। মামলার পরে আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এই অবৈধ গ্যাস সংযোগের ব্যবসা করে মাসুদুর রহমান সিপাই কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। টঙ্গী ও আশুলিয়ায় দুটি বহুতল বাড়িও বানিয়েছেন। তাঁকে অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

এ ব্যাপারে প্রকৌশলী মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘সব অবৈধ গ্যাস লাইন পর্যায়ক্রমে বিচ্ছিন্ন করা হবে। নিয়মিত এ অভিযান এপ্রিল মাসজুড়ে চলবে।’

সংযোগ বিচ্ছিন্ন কাজে আজ উপস্থিত ছিলেন সাভার তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের উপব্যবস্থাপক প্রকৌশলী হাদী আবদুর রহিম, সহব্যবস্থাপক আনিসুজ্জামানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

এ ছাড়া অভিযান চলাকালে যেন কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সে জন্য ওই সব এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement