Beta

খুলনায় জামিনে মুক্তি পেলেন সাংবাদিক হেদায়েৎ

০৩ জানুয়ারি ২০১৯, ২০:০০

আজ বৃহস্পতিবার খুলনা কারাগার থেকে মুক্তি পাওয়ার পর সাংবাদিক হেদায়েৎ হোসেন মোল্লা ও তাঁর স্ত্রীসহ সহকর্মীরা। ছবি : এনটিভি

নির্বাচনের ফলাফল সংক্রান্ত প্রতিবেদন সঠিক ও তথ্যভিত্তিক না হওয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার হওয়া খুলনার সাংবাদিক মো. হেদায়েৎ হোসেন মোল্যা জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। এতে গ্রেপ্তারের দুদিন পর আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় খুলনা জেলগেট থেকে মুক্তি পান হেদায়েৎ। এ সময় খুলনা প্রেসক্লাবের সভাপতি এস এম হাবীবসহ সাংবাদিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

তিনদিনের রিমান্ডে থাকা সাংবাদিক হেদায়েৎ হোসেন মোল্লাকে আজ বিকেল ৩টার পর বটিয়াঘাটা থানা পুলিশ খুলনা জেলা ও দায়রা আদালতে হাজির করে। আসামিপক্ষে আইনজীবী মাসুম বিল্লাহসহ একাধিক আইনজীবী জামিনের পক্ষে শুনানি করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে জেলা ও দায়রা জজ মশিউর রহমান চৌধুরী সাংবাদিক হেদায়েৎ হোসেন মোল্লাকে আগামী ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত অন্তর্বর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করেন। পরে সন্ধ্যা ৭টার দিকে হেদায়েৎ হোসেন মোল্লাকে খুলনা জেলা কারাগার থেকে মুক্তি দেওয়া হয়।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রাতে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন খুলনা-১ আসনের ফল ঘোষণা করেন। এতে মোট ভোট সংখ্যার চেয়ে প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা বেশি ছিল। সাংবাদিক হেদায়েৎ হোসেন মোল্যা তখন বিষয়টি রিটার্নিং কর্মকর্তার দৃষ্টি আকর্ষণ করলে এক ঘণ্টা পর রিটার্নিং কর্মকর্তা পুনরায় সংশোধনী ফল ঘোষণা করেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তার প্রথম ঘোষণার পর এ-সংক্রান্ত একটি খবর প্রকাশ করে বাংলা ট্রিবিউন। খবরটি প্রকাশের কয়েক ঘণ্টা পর আবার তা প্রত্যাহার করে নেয় অনলাইন নিউজ পোর্টালটি। তবে হেদায়েৎ হোসেন মোল্যার পাঠানো প্রতিবেদনটি ইংরেজি দৈনিক ঢাকা ট্রিবিউনে পরের দিন ছাপা হয়।

এ ঘটনায় নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেবাশীষ চৌধুরী বাদী হয়ে সাংবাদিক হেদায়েৎ হোসেন মোল্যা ও মানবজমিনের সাংবাদিক মো. রাশিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ৩১ ডিসেম্বর রাতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বটিয়াঘাটা থানায় মামলা করেন। পরদিন ১ জানুয়ারি খুলনা প্রেসক্লাব থেকে বের হওয়ার পর বিকেল ৩টার দিকে হেদায়েৎ হোসেন মোল্যাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ২ জানুয়ারি পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন খুলনার বিচারিক হাকিম আদালত ৩-এর বিচারক নয়ন বিশ্বাস।

Advertisement