সুনামগঞ্জে ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করার দাবিতে মানববন্ধন

১৬ মে ২০১৯, ০০:৩৫

কৃষকদের কষ্টার্জিত ধানের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা, কৃষি ক্ষেত্রে ভর্তুকি বাড়ানো এবং সরকারিভাবে ধান ক্রয়ে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধের দাবিতে সুনামগঞ্জে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

বুধবার বিকেল ৩টায় পৌর শহরের হুসেন বখত চত্বরে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ এই মানববন্ধন করে।

মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য দেন শিক্ষার্থী তাহমিনা জাহান, মাহবুবুর রহমান, নাসিম চৌধুরী, দ্বিপাল ভট্টাচার্য, ইকবাল হোসেন, তানভীর হাসান, সালাম মাহবুব, ফারুক হাসান, শাহীনুর পাশা প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, কৃষকেরা তাদের অতি কষ্টে ফসল ফলিয়ে সেই ফসলের ন্যায্য মূল্য পায় না। এখন বাজারে ধানের যে দাম তাতে উৎপাদন খরচই উঠছে না। অথচ এই ধানের ওপরই একটি কৃষক পরিবারের সব কিছু নির্ভর করে। কৃষক পরিবারের এক বছরের খাবার, ছেলেমেয়ের লেখাপড়া, বিয়েশাদি সব কিছুই এই ধানকে ঘিরে। ধানের ন্যায্য দাম না হলে কৃষক পরিবারে কষ্টের সীমা থাকে না। কিন্ত হাওরের কৃষক এখন হতাশ।

বক্তারা আরো জানান, সুনামগঞ্জে এবার দুই লাখ ২৪ হাজার ৪৪০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। জেলায় বোরো ধানের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৯ লাখ ৭৫ হাজার মেট্রিক টন। অথচ জেলায় সরকারিভাবে মাত্র ছয় হাজার ৫০৮ মেট্রিক টন ধান কেনা হবে। এটা কৃষকদের প্রতি উপহাস। কিন্তু কষ্টার্জিত ফসলের দাম নিয়ে হাওরজুড়ে এখন কৃষক পরিবারে চরম হতাশা বিরাজ করছে।

সরকারিভাবে ধান ক্রয় নিয়ে বক্তারা বলেন, এই ধান কৃষকেরা দিতে পারে না। ক্ষমতাসীন দলের লোকজন এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা মিলে এ জন্য একটা সিন্ডিকেট তৈরি করেন। এই সিন্ডিকেটই কৃষকের নামে গুদামে ধান বিক্রি করে সরকারি বরাদ্দ লুটে নেয়। এই অপতৎপরতা বন্ধ করতে হবে। সুনামগঞ্জে সরকারিভাবে ধান ক্রয়ে অনিময়-দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। একই সঙ্গে ধান ক্রয়ের পরিমাণ আরো বাড়াতে হবে।