Beta

যুবলীগ নেতা হত্যার আসামি ২ রোহিঙ্গা ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত

২৪ আগস্ট ২০১৯, ১১:৩২ | আপডেট: ২৪ আগস্ট ২০১৯, ১২:০৭

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় যুবলীগ নেতা ওমর ফারুক হত্যা মামলার আসামি দুই রোহিঙ্গা নাগরিক কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন বলে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরা এলাকার বাড়ি থেকে যুবলীগের ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি ওমর ফারুককে ডেকে নিয়ে অদূরবর্তী পাহাড়ে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনার জন্য পরিবারের সদস্যরা রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে মামলা করেন।

ওমর ফারুক হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমোরা এলাকার মো. মোনাফ কোম্পানির ছেলে। তিনি হ্নীলা ৯ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি এবং জাদিমোরা এম আর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি।

এর মধ্যেই গতকাল শুক্রবার দিবাগত গভীর রাত দেড়টার দিকে উপজেলার জাদিমোরা পাহাড়ের পাদদেশে বন্দুকযুদ্ধে হত্যা মামলার দুই আসামি মোহাম্মদ শাহ ও আবদুস শুক্কুর নিহত হন বলে দাবি করেছেন টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ।

মোহাম্মদ শাহ ও আবদুস সবুর জাদিমোরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা।

আজ শনিবার সকালে ওসি আরো দাবি করেন, ওমর ফারুক হত্যায় জড়িত রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা জামিমোরা পাহাড়ের পাদদেশে অবস্থান করছে- এমন খবর পেয়ে পুলিশের একটি দল সেখানে অভিযানে যায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা গুলি ছুড়ে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়।

‘উভয়পক্ষের মধ্যে গোলাগুলিতে দুই রোহিঙ্গা গুলিবিদ্ধ হয় এবং অন্যরা পালিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ দুজনকে উদ্ধার করে প্রথমে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাদের কক্সবাজার সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করে। সদর হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন।’

এই ঘটনায় পুলিশের এক উপপরিদর্শকসহ তিন সদস্য আহত হয়েছেন বলেও দাবি করেন ওসি। তিনি আরো বলেন, ঘটনাস্থল থেকে দুটি বন্দুক ও নয়টি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য নিহতদের লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

Advertisement