Beta

ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার, কারাগারে জবি ছাত্রলীগের দুই কর্মী

০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:০৬

জবি সংবাদদাতা
গতকাল সোমবার রাতে পুরান ঢাকার ধূপখোলা মাঠের পাশ থেকে ইয়াবাসহ আটক হওয়া শাহরিয়ার রহমান শান্ত (বাঁয়ে) ও মো. নিক্সন। ছবি : সংগৃহীত

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রলীগের দুই কর্মীকে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার করেছে গেন্ডারিয়া থানা পুলিশ। গতকাল সোমবার রাত ১১টার দিকে পুরান ঢাকার ধূপখোলা মাঠের পাশ থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। আজ মঙ্গলবার তাদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

গ্রেপ্তার হওয়া ছাত্রলীগকর্মীরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের ১৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. শাহরিয়ার রহমান শান্ত (সাময়িক বহিষ্কৃত) এবং অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের ১০ ব্যাচের শিক্ষার্থী মো. নিক্সন।

গেন্ডারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল জলিল বলেন, ধূপখোলা মাঠের পাশে আসগর আলী হাসপাতালের সামনে শান্ত ও নিক্সন ইয়াবা সেবন করছিলেন। এ সময় গেন্ডারিয়া থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আশরাফের নেতৃত্বে টহল দল তাদের তল্লাশি করলে সাতটি ইয়াবা পাওয়া যায়। পরে শান্ত ও নিক্সনকে থানায় নিয়ে যাওয়ার সময় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ৯ ব্যাচের শিক্ষার্থী আসাদুজ্জামান রুবেল পুলিশকে জেরা করলে তাঁকেও পুলিশভ্যানে করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

আজ মঙ্গলবার সকালে শান্ত ও নিক্সনের নামে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দেওয়া হয়। রুবেলকে তার অভিভাবকের কাছে তুলে দেওয়া হবে বলে জানান ওসি আবদুল জলিল।

এ ব্যাপারে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মদ বলেন, মাদকদ্রব্যসহ আটক শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদিন রাসেল বলেন, ‘এর আগে সংঘর্ষের ঘটনায় শান্তকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আর নিক্সনকে আমি চিনি না, সে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না।’

আটক হওয়া শাহরিয়ার রহমান শান্ত গত বৃহস্পতিবার ও রোববারের জবি শাখা ছাত্রলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িক বহিষ্কৃত হয়েছিলেন।

এদিকে ইয়াবা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গেন্ডারিয়া থানার এসআই উত্তম কুমার আজ জবির দুই শিক্ষার্থীকে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আবু সাঈদ তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Advertisement