Beta

ডাকসুর ভিপির ওপর হামলা, জড়িতদের তালিকা প্রকাশ

২৭ মে ২০১৯, ১৬:০১

বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা

বগুড়ায় ইফতার মাহফিলে যাওয়ার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরসহ বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন করা হয়েছে।

এর প্রতিবাদে আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে মানববন্ধন করেছে সংগঠনটি।

এর আগে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে তাঁরা টিএসসি থেকে অপরাজেয় বাংলায় আসেন। মানববন্ধনে হামলাকারীদের একটি তালিকা প্রকাশ করেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন। ভিডিও ফুটেজ দেখে এবং স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীদের তথ্যের ভিত্তিতে হামলাকারীদের শনাক্ত করা হয়েছে বলে মানববন্ধনে জানানো হয়।

তালিকায় আছেন বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক তিতাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তাকভির ইসলাম খান ও প্রচার সম্পাদক মো. মুকুল ইসলাম এবং বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রউফ।

মানববন্ধনে হাসান আল মামুন বলেন, ‘ডাকসুর ভিপির ওপর ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা যে বর্বর হামলা চালিয়েছে, আমরা তার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এখন পর্যন্ত ছাত্রলীগ আমাদের ওপর যতগুলো হামলা চালিয়েছে, তার একটিরও বিচার হয়নি।’

ডাকসু ভিপিসহ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাদের ওপর হামলায় জড়িত ছাত্রলীগ নেতাদের সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা না হলে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়, জেলা, কলেজ ইউনিট থেকে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলেও জানান হাসান আল মামুন।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান বলেন, ‘বাংলাদেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি চলছে। সন্ত্রাসীরা আমাদের ওপর একের পর এক হামলা করছে। কিন্তু আমরা সে হামলার বিচার পাচ্ছি না।’

রাশেদ খান অনতিবিলম্বে ডাকসুর ভিপির ওপর হামলার বিচার দাবি করেন।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান খান, মশিউর রহমান প্রমুখ।

গতকাল রোববার বগুড়ায় ইফতার মাহফিলে যোগ দিতে গিয়ে হামলার শিকার হন ডাকসুর ভিপি ও পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর, আরেক যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসাইন, রাতুল ও আপন। ওই ঘটনার চিত্র ধারণ করতে গিয়ে দুই সংবাদকর্মী ছাত্রলীগ কর্মীদের হাতে মারধরের শিকার হন।

পরে আহতদের বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে নেওয়ার পর প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে নুরুল হক নুরসহ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতারা ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন।

হামলার ব্যাপারে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাঈমুর রাজ্জাক তিতাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, রোববার এডওয়ার্ড পার্কের দক্ষিণ পাশের টিটু মিলনায়তনে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ইফতার মাহফিল ছিল। ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেখানে পৌঁছার পর জানতে পারেন, পার্কের ভেতরে উডবার্ন লাইব্রেরি মিলনায়তনে সাধারণ ছাত্রদের ব্যানারে শিবির ইফতার মাহফিল করছে। ছাত্রলীগের কিছু কর্মী বিষয়টি নিশ্চিত হতে সেখানে যান। তাঁরা গিয়ে দেখেন, ডাকসুর ভিপি নুরসহ ঢাকার কিছু ছাত্রনেতা সেখানে এসেছেন। তাঁরা ভিপি নুরকে জানান যে ছাত্রশিবিরের ইফতার মাহফিলে তিনি যেন অংশ না নেন। এ সময় তিনি ছাত্রলীগের কর্মীদের সঙ্গে বাদানুবাদ শুরু করেন। একপর্যায়ে সেখানে মারধরের ঘটনা ঘটে।

বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম বদিউজ্জামান জানান, অনুমতি না নিয়ে ওই মিলনায়তনে কর্মসূচি পালনের খবর জেনে পুলিশ সেখানে যায়। পুলিশ পৌঁছার আগেই সেখানে মারধরের ঘটনা ঘটে। বিক্ষুব্ধ কিছু ছাত্র তাদের মারধর করেছে বলে পুলিশ জেনেছে। এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে গত শনিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ছাত্রলীগের বাধার মুখে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুরের ইফতার মাহফিল পণ্ড হয়ে যায়। শনিবার বিকেলে জেলা শহরের মসজিদ রোডের একটি হোটেলে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের উদ্যোগে এ অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু হোটেলের প্রধান গেটে তালা দেওয়ায় অনুষ্ঠান ভণ্ডুল হয়ে যায়। এতে ভিপি নুরসহ নেতারা সড়কের পাশেই বসে ইফতার করেন।

Advertisement