Beta

প্রথম পারিশ্রমিক ছিল ৩০ হাজার টাকা : কোনাল

১১ আগস্ট ২০১৮, ১২:৩৩

সোমনুর মনির কোনাল। সংগীতশিল্পী। দেশের জনপ্রিয় এই  সংগীত তারকার জীবনে ঘটে যাওয়া প্রথম অনেক বিষয় নিয়ে অনেকের জানার কৌতূহল রয়েছে। সম্প্রতি এনটিভি অনলাইনের সঙ্গে এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে তিনি তাঁর জীবনে ঘটে যাওয়া প্রথম অনেক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন।

প্রথম স্কুল : কুয়েতের ইউনাইটেড ইন্ডিয়ান স্কুল।

প্রথম শিক্ষক : বাবা-মায়ের কাছে প্রথম হাতেখড়ি হয়েছিল। আর স্কুলের প্রথম শিক্ষক ছিলেন রেমেনি টমাস। অনেক কোমল মনের শিক্ষক ছিলেন।আমাকে পড়াশোনায় অনেক সাহায্য করেছেন।আমি এভারেজ স্টুডেন্ট ছিলাম। অঙ্ক ভালো পারতাম না।কিন্তু অন্য বিষয়ে ৯০-এর বেশি নম্বর পেতাম। অন্যদিকে, ভাষা কোর্সগুলোতে আমি খুব ভালো রেজাল্ট সবসময় করেছি।

প্রথম রেকর্ডিং গান : গানের শিরোনাম ছিল  ‘স্বপ্ন  ডানা’। শফিক তুহিনের লেখা ও সুর ছিল। মিউজিক করেছিলেন ইবরার টিপু। আমার বন্ধু মহলে অনেকেই আমাকে এখনো বলে, ‘এই গানের  ভিডিও করা যেত, খুব সুন্দর গান।’

প্রথম গান রেকর্ডিংয়ের অভিজ্ঞতা :  আমাকে তুহিন ভাই রেকর্ডিংয়ের আগে বলেছিলেন, ‘এই গানটা একজন তরুণীর উচ্ছ্বাসের গান। নিজেকে সেভাবে গাইতে হবে।’ আমি সেভাবেই গেয়েছিলাম। ফার্স্ট রেকর্ডি ছিল তাই একটু নার্ভাস তো ছিলামই। পরে ধীরে ধীরে সবকিছু শিখেছি।

প্রথম পারিশ্রমিক : কুয়েতে আমেরিকান ইউনিভার্সিটিতে আমি পড়েছিলাম। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যেকোনো সোশ্যাল ওয়ার্ক আমাদের করতে হতো। যার যেটা ইচ্ছা সে সেটা করতে পেত। আমি কুয়েতের একটা স্কুলে শিক্ষকতা করেছিলাম। শিক্ষকতা করে আমার প্রথম পারিশ্রমিক ছিল  প্রায় ৩০ হাজার টাকা। ১১০ দিনার পেয়েছিলাম আরকি! এখনো মনে আছে, প্রথম পারিশ্রমিক পেয়ে পোশাক কিনেছিলাম। আমার জন্য বেশি পোশাক কিনেছি।পরিবারের সবার জন্যও টুকটাক কিনেছিলাম। এ ছাড়া কিছু খাবারও কিনেছি।

প্রথম প্রেম :  স্কুলে পড়ার সময় প্রথম প্রেমে পরেছিলাম। তখন আমি সম্ভবত ক্লাস এইটে পড়ি। আমাদের এক সিনিয়র ভাই ছিলেন। তিনি ক্লাস নাইনে পড়তেন। খুব ভালো বাস্কেট বল খেলতেন। গেমস পিরিয়ডে আমরা বান্ধবীরা মিলে সেই ভাইয়ার খেলা মুগ্ধ হয়ে দেখতাম। শুধু আমার নয়, আমার সব বান্ধবীর ক্রাশ ছিলেন সেই ভাইয়া। কিন্তু আমার ভালো লাগার কথা কোনদিন তাঁকে জানাতে পারিনি। এমনকি কথাও হয়নি কোনোদিন। এখন তাঁর নামও ভুলে গেছি। এটুকু মনে আছে, তিনি ইন্ডিয়ান ছিলেন।

প্রথম পড়া গল্পের বই :  রুপকথার গল্পের বই পড়েছি। আর একটু বড় হয়ে পড়েছি তসলিমা নাসরিনের লেখা বই ‘লজ্জা’।

প্রথম পরা শাড়ি : দুই বছর বয়সে  আমার জন্মদিনে প্রথম শাড়ি পরেছিলাম। বাসার ছাদে আম্মু আমাকে বসিয়ে ছবি তুলেছিলেন। ছবিটা এখনো আছে।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement