Beta

অসচ্ছল শিল্পীদের জন্য চ্যারিটি শো, টাকা কার পকেটে?

১০ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:৫২

বর্তমানে চলচ্চিত্রের অবস্থা অনেকটাই নাজুক। কাজ নেই সাধারণ শিল্পীদের হাতে। বাংলাদেশ শিল্পী সমিতির উদ্যোগে অসচ্ছল শিল্পীদের জন্য অর্থ সংগ্রহ করতে আয়োজন করা হয় চ্যারিটি শো।

গত বছর মার্চে নরসিংদীর ড্রিম হলিডে পার্কে এই আয়োজনে নাচ করেন নায়ক ফেরদৌস, রিয়াজ, জায়েদ খান, জয় চৌধুরী, শিপন মিত্র, নায়িকা পপি, অপু বিশ্বাস, বিপাশা কবির, মিষ্টি জান্নাত, রোমানা নীড়, আঁচল আঁখি।

নরসিংদীর ড্রিম হলিডে পার্ক কর্তৃপক্ষ অনুষ্ঠানের জন্য বাংলাদেশ শিল্পী সমিতিকে মোট আট লাখ টাকা প্রদান করে। তবে অসচ্ছল শিল্পীদের জন্য চ্যারিটি শোর টাকা সচ্ছল শিল্পীদের পকেটে।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ‘আমাদের শিল্পী সমিতির ফান্ডে চার লাখ টাকা জমা আছে। এখান থেকে অসচ্ছল শিল্পীদের প্রয়োজনীয় সহায়তা করা হয়। আর বাকি চার লাখ টাকা যাঁরা পারফর্ম করেছিলেন, তাঁদের দেওয়া হয়েছে। সিনিয়র শিল্পীরা ৫০ হাজার করে টাকা নিয়েছেন। জুনিয়ররা কিছু কম নিয়েছেন।’

অভিযোগ করে জায়েদ বলেন, ‘সাধারণ শিল্পীরা টাকা নিয়েছে, এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে চাই না। তবে আমাদের কমিটিতে যাঁরা ছিলেন, যাঁদের সাধারণ সদস্যরা ভোট দিয়ে নেতা বানিয়েছে, তাঁদের মধ্যে ফেরদৌস ভাই, রিয়াজ ভাই, পপিও টাকা নিয়েছেন। এটা হতে পারে না। আমি বা মাসুম বাবুল ভাই তো টাকা নিইনি। যখন দেখলাম অসচ্ছল শিল্পীদের জন্য চ্যারিটি শো আমাদের শিল্পী সমিতির নির্বাচিত নেতারা টাকা ছাড়া করবেন না। আর সবাইকে টাকা দিলে ফান্ডে তেমন টাকা থাকছে না। এর পর আর চ্যারিটি শোর আয়োজন করিনি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চিত্রনায়ক রিয়াজ বলেন, ‘আমি খুবই অবাক হচ্ছি এ রকম মিথ্যাচার দেখে। আমি, ফেরদৌস বা পপি কেউ কি ৫০ হাজার টাকা পারিশ্রমিকের শিল্পী? এমন হলে তো দিনে চারটা করে শো করতে পারতাম। সবাইকে নিজেদের মাপের মনে করে ওরা? সেই শোটি ছিল আট লাখ টাকা বাজেটের। তার মধ্যে চার লাখ টাকা শিল্পী সমিতির ফান্ডে জমা হয়েছে। আর বাকি চার লাখ টাকা যাঁরা পারফর্ম করেছেন, তাঁদের দেওয়া হয়েছে। সেটা কিন্তু পারিশ্রমিক হিসেবে নয়। ড্রেস ও অন্যান্য বাবদ। আর তা নির্ধারণ করা হয়েছে সবাই মিলেই।’

এ বিষয়ে নায়িকা পপি বলেন, ‘আমি কোনো টাকা পাইনি। চ্যারিটি শো থেকে কোনো টাকা নিইনি। তবে আমার পেছনে যাঁরা পারফর্ম করেছেন, তাঁদের টাকা দেওয়া হয়েছে। আমি, ফেরদৌস ভাই বা রিয়াজ ভাই ৫০ হাজার টাকার শিল্পী না। এসব কথা বলে আমাদের ও শিল্পীদের ছোট করা হয়েচ্ছে। শুধু চ্যারিটি শো নয়, আমি র‍্যাব ও পুলিশের বেশ কিছু অনুষ্ঠানে নাচ করেছি। সেই অনুষ্ঠানের টাকাও পাইনি। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শিল্পীদের মধ্যে কাদা ছোড়াছুড়ি আপত্তিকর।’

Advertisement