Beta

সুস্থভাবে রোজা রাখতে ১০ পরামর্শ

১৬ মে ২০১৮, ১০:৫৬

রোজায় অস্বাস্থ্যকর খাবার খাবেন না। ছবি : সংগৃহীত

রোজা প্রায় চলে এসেছে। রোজায় যেহেতু দীর্ঘ সময় না খেয়ে থাকতে হয়, তাই কিছু বিষয় খেয়াল রাখা জরুরি। না হলে শরীরে বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে।

স্বাস্থ্যকর উপায়ে রোজা থাকতে কিছু পরামর্শ  

১.  রোজায় পানিশূন্যতা বেশি হয়। এ সমস্যা সমাধানে ইফতার ও সেহরিতে বেশি করে তরল খাবার খেতে হবে। ইফতার থেকে সেহরির মাঝখানে বারবার পানি পান করতে হবে।

২. ইফতার ও সেহরিতে ভাজাপোড়া ও  মসলাযুক্ত খাবার খেলে পানির পিপাসা বাড়ে। এ সময় ক্লান্তি ভাব তৈরি হয়।  তাই আদর্শ, সুষম খাবার খেতে হবে। প্রচুর পরিমাণে দেশি ফল, ফলের শরবত ও শাকসবজি খান।

৩. হঠাৎ ঠান্ডা পানি দিয়ে ইফতার করবেন না। বেশি ঠান্ডা পানি রক্তনালি সংকোচন বাড়িয়ে হজমে সমস্যা করে। এ সময় স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি পান করুন।

৪. রোজায় খাদ্য তালিকায় ক্ষতিকর চর্বিজাতীয় খাবার রাখবেন না। চর্বিজাতীয় খাবার শরীরকে গরম করে। এতে শরীর থেকে পানি বের হয়ে গিয়ে পানিশূন্যতা তৈরি হয়।

৫. ইফতার ও সেহরিতে আমিষ বা প্রোটিন খাবার খান। এ ছাড়া  রোজার মাসে নিয়মিত ডিম, দুধ, মাছ, মুরগির মাংস, ডাল ইত্যাদি খেতে হবে। এতে ক্ষুধা কম লাগবে। এ ছাড়া অনেকক্ষণ শক্তিও থাকবে।

৬. রোজায় চা, কফি, কোমল পানীয় পান করবেন না। এগুলো পানিশূন্যতা বাড়িয়ে তোলে।

৭. রোজার সময় অতিরিক্ত চিনিযুক্ত খাবার, শুকনো ও প্রক্রিয়াজাত খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলুন। এগুলো শরীরকে পানিশূন্য করে।

৮. সেহরিতে কম না খেয়ে নিয়মিতভাবে পুষ্টিকর খাবার খান। কোনো সেহরি বাদ দেওয়া যাবে না। মাঝরাতে সেহরি না খেয়ে শেষ মুহূর্তে সেহরি খেতে হবে। এতে সারা দিন শরীরে শক্তি থাকবে।

৯.  রোজায় নিয়মিত দাঁত ব্রাশ করুন, গোসল করুন, পরিষ্কার কাপড় পরুন।  সুতির সাদা বা হালকা রঙের কাপড় পরুন। এতে শরীর ঠান্ডা থাকবে।  দিনের বেলা রোদের ভেতর প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাবেন না। বাইরে বের হলে ছাতা বা ক্যাপ ব্যবহার করুন।

১০. রোজায় অস্বাস্থ্যকর খাবার পেটের পীড়া তৈরি করতে পারে। তাই গরম গরম খাবার খান। খাদ্য রান্না ও সংরক্ষণে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা মেনে চলুন। এ ছাড়া রোজার দিনগুলোতে পর্যাপ্ত  ঘুম ও বিশ্রাম নিন।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজ, সাভার।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement