Beta

২১ আগস্ট

গ্রেনেড হামলা, মামলা ও রাজনীতি

১১ অক্টোবর ২০১৮, ১৩:১৩

শিহাব উদ্দিন খান

বাংলাদেশের ইতিহাসে রাজনৈতিক কর্মসূচি কিংবা রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গের ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাসমূহের মধ্যে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা অন্যতম। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশ শেষ হওয়ার মুহূর্তে চালানো পৈশাচিক গ্রেনেড হামলায় নিহত হন ২৪ জন। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন উক্ত ২১ আগস্ট চালানো গ্রেনেড হামলার ঘটনায় আনা পৃথক দুই মামলার রায় ঘোষণা করেছেন গত ১০ অক্টোবর। রায়ে সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, ডিজিএফআইর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, এনএসআই মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার (অব.) আবদুর রহিমসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, হারিছ চৌধুরী, সাবেক সাংসদ কায়কোবাদসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন দেওয়া হয়েছে। প্রায় ১০ বছর বিচারিক কার্যক্রম শেষে এ রায় ঘোষণার মধ্য দিয়ে নৃশংস এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার বিচারিক আদালতের কার্যক্রম শেষ হলো।

ঘটনার পরের দিন, অর্থাৎ ২২ আগস্ট, ২০০৪ মতিঝিল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ফারুক আহমেদ বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন, যার মামলা নম্বর ছিল ৯৭। মামলাটি প্রথমে তদন্ত করে থানা পুলিশ। পরে তদন্তের দায়িত্ব পায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। পরবর্তী সময়ে মামলাটি যায় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি)। তৎকালীন সরকার ঘটনা তদন্তে ২০০৪ সালের ২২ আগস্ট বিচারপতি জয়নুল আবেদীনকে চেয়ারম্যান করে এক সদস্যের বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠন করে। এক মাস ১০ দিনের মাথায় ১৬২ পৃষ্ঠার একটি প্রতিবেদন দাখিল করে ওই কমিশন, যেখানে এ হামলার পেছনে একটি শক্তিশালী বিদেশি শক্তি জড়িত বলে উল্লেখ করা হয়। তবে কোনো বিদেশি শক্তির নাম কমিশন প্রদত্ত প্রতিবেদনে নির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়নি। তৎকালীন সরকার যুক্তরাজ্যের তদন্ত সংস্থা স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডকেও তদন্তের জন্য আমন্ত্রণ জানায়; কিন্তু ওই তদন্তও সম্পন্ন হয়নি ।

ঘটনার ১০ মাসের মাথায় ২০০৫ সালের ৯ জুন জজ মিয়া নামের এক যুবককে সিআইডি আটক করে। ১৭ দিন রিমান্ডে রেখে জজ মিয়ার কাছ থেকে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি আদায় করা হয়। কিন্তু জজ মিয়ার সংশ্লিষ্টতা বিষয়ে শুরু থেকেই জল্পনা-কল্পনা চলতে থাকে এবং একে সাজানো নাটক বলে বিভিন্ন মহল, বিশেষ করে আওয়ামী লীগ থেকে দাবি করা হয় এবং শেষ পর্যন্ত জজ মিয়ার সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি মর্মে পরবর্তী তদন্তে উল্লেখ করা হয় ।

২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে মামলাটির তদন্ত পুনরায় শুরু হয় এবং ওই সময়ের তদন্তে গ্রেনেড হামলা বিষয়ে রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা এবং গোপন জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদ বাংলাদেশের (হুজি-বি) সরাসরি অংশগ্রহণের বিষয় তদন্তে সামনে আসতে থাকে।

ঘটনার তিন বছর নয় মাস ২১ দিন পর ২০০৮ সালের ১১ জুন সিআইডির সিনিয়র এএসপি ফজলুল কবির সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, জঙ্গি নেতা মুফতি হান্নানসহ ২২ জনকে অভিযুক্ত করে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন। ওই বছরই মামলা দুটির কার্যক্রম দ্রুত বিচার আদালত-১-এ স্থানান্তর করা হয়। বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিনের আদালতে এ মামলার বিচার শুরু হয়।

২০০৮ সালের ২৯ অক্টোবর থেকে ২০০৯ সালের ৯ জুন পর্যন্ত ৬১ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে ট্রাইব্যুনাল। পরে ২০০৯ সালের ৩ আগস্ট রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনক্রমে অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। এবার মামলাটি অধিকতর তদন্তের দায়িত্ব পান সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার আবদুল কাহার আকন্দ, যিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলারও তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি ২০১১ সালের ৩ জুলাই প্রথম অভিযোগপত্রের ২২ জন ছাড়াও তারেক রহমানসহ আরো ৩০ জনের (মোট আসামি ৫২ জন) বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১২ সালের ১৮ মার্চ বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ সম্পূরক চার্জশিটের ৩০ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে ফের বিচার শুরু হয়।

মূলত ২০১২ সালের ১৮ মার্চ বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এবং বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নাম উল্লেখ করে সম্পূরক চার্জশিট দাখিলের পর থেকেই এই মামলার কার্যক্রমকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত দাবি করে আসছে বিএনপি।

মামলার বিচারে রাষ্ট্রপক্ষের ৪৯১ সাক্ষীর মধ্যে ২২৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। আসামিপক্ষে ২০ জন সাফাই সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। মামলায় ১৪৪টি আলামত ও ৫৫টি ডকেট প্রদর্শন করা হয়েছে। গত বছরের ২৩ অক্টোবর এ মামলার যুক্তিতর্ক শুরু হয়। শুনানি শেষে গত ১৮ সেপ্টেম্বর আদালত রায়ের দিন ঘোষণা করে।

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ঘোষণায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। বিশেষ করে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠানের প্রাক্কালে বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ায় এ রায়ের নানাবিধ প্রভাব নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, কোনো সাক্ষীর সাক্ষ্যে তারেক রহমানের নাম ও সংশ্লিষ্টতা প্রমাণ না হওয়ার পরও শুধু মুফতি হান্নানের একটি জবানবন্দির ওপর ভিত্তি করে তাঁকে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করা হয়েছে। অন্যদিকে, তারেক রহমানের সর্বোচ্চ সাজা নিশ্চিত না হওয়ায় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী হতাশা দেখিয়েছেন।

এ রকম একটি চাঞ্চল্যকর মামলার বিচার কার্যক্রম শেষ হওয়ার মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডে বিচারহীনতার সংস্কৃতি লাঘব হওয়ার পথ অনেকটা সুগম হবে। তবে উচ্চ আদালতে মামলার আপিল কার্যক্রম সম্পন্ন করে চূড়ান্ত অপরাধীর তালিকা নিশ্চিত হতে হয়তো আরো বেশ কিছু সময় লেগে যাবে। সত্যিকারের অপরাধী কিংবা অপরাধীদের চূড়ান্ত বিচারে শাস্তি নিশ্চিত হোক, এটাই সকলের প্রত্যাশা।

লেখক : অ্যাডভোকেট, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ও সিনেট সদস্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement