Beta

১৭ বছরে এনটিভি

শুভ হোক এনটিভির আগামীর যাত্রা

০৩ জুলাই ২০১৯, ১০:২২

ড. সুলতান মাহমুদ রানা

আজ ৩ জুলাই। জনপ্রিয় টিভি চ্যানেল এনটিভির ১৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ‘সময়ের সাথে আগামীর পথে’—এ স্লোগানে বাংলা ভাষা আর সংস্কৃতিকে ধারণ করে ২০০৩ সালের এই দিনে প্রথম অটোমেশন-ভিত্তিক যুগোপযোগী বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল ইন্টারন্যাশনাল টেলিভিশন চ্যানেল লিমিটেড (এনটিভি) যাত্রা শুরু করে। দর্শকের অবিরাম তথ্য ও বিনোদনের চাহিদা পূরণ করে যাওয়া এনটিভি শুধু একটি স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেলই নয়; একটি স্বপ্ন, একটি পরিবার।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধকে ধারণ করে এনটিভি একঝাঁক তরুণ নিয়ে দেশে ও দেশের বাইরে কোটি দর্শকের কাছে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ ও মানসম্মত অনুষ্ঠান নিয়মিতভাবে তুলে ধরতে সক্ষম হচ্ছে। আদর্শ, নীতি, সর্বোচ্চ পেশাদারিত্বকে প্রাধান্য দিয়ে নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের যথেষ্ট সুনাম রয়েছে এনটিভির। শুধু সংবাদ নয়; সমসাময়িক ঘটনা, আলোচনা অনুষ্ঠান, প্রামাণ্যচিত্র, খেলাধুলার খবর, ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক অনুষ্ঠান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির খবর এনটিভি সম্প্রচার করে আসছে প্রথম থেকেই। এনটিভিতে প্রতিদিনই আমরা ভিন্নধর্মী বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান উপভোগ করি। বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে ধারণ করে নির্মিত এনটিভির নাটক, টেলিফিল্ম, সংগীতানুষ্ঠান, ধর্মীয় অনুষ্ঠান, কেরাত প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিষয়ক অনুষ্ঠান, কুইজ ও ভ্রমণবিষয়ক শো ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে দর্শকের কাছে। ঈদ উৎসব, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবসের মতো বছরের বিশেষ দিনে ব্যতিক্রমধর্মী অনুষ্ঠান দর্শকদের কাছে নিয়মিতভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করে এনটিভি। তরুণ প্রজন্ম, আগামীর পৃথিবীর জন্য একটি বস্তুনিষ্ঠ, উন্নয়নকামী গণমাধ্যম গড়ে তোলার প্রত্যয় রয়েছে এনটিভি পরিবারের।

ইদানীং টিভির পাশাপাশি এনটিভি অনলাইন অধিক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। বিশ্বের যেখানে যখনই কোনো ঘটনা ঘটছে, তখনই সেটি তুলে আনছে এই অনলাইন নিউজপোর্টালটি। টেলিভিশন যেমন তাৎক্ষণিক, এনটিভি অনলাইনও তেমন। অনলাইনের খবর পৌঁছে যাচ্ছে পাঠকের কাছে কম্পিউটার, ল্যাপটপ কিংবা স্মার্টফোনে। এনটিভি অনলাইনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে বিভিন্ন বিশ্লেষণমূলক লেখালেখিও বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

এই পথচলায় এনটিভি কুড়িয়েছে অগণিত দর্শকের ভালোবাসা। দেশের সীমানা ছাড়িয়ে পৌঁছে গেছে বিশ্বের নানা প্রান্তে। এগিয়ে চলার পথে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে এশিয়া, ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য, অস্ট্রেলিয়াসহ আফ্রিকার একটি বড় অংশে পৌঁছে গেছে এনটিভি। যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়ায় রয়েছে এনটিভির নিজস্ব কার্যালয় ও স্টুডিও।

দর্শকের অবিরাম তথ্য ও বিনোদনের চাহিদা পূরণ, দেশের ভাষা ও সংস্কৃতির মর্যাদা অক্ষুণ্ণ রাখা ও রুচিশীল বিনোদনের মাধ্যমে সংস্কৃতিকে এগিয়ে নেওয়াই হলো এনটিভির অন্যতম প্রয়াস। আমি নিজে এনটিভির একজন নিয়মিত দর্শক হিসেবে এবং এনটিভি অনলাইনের একজন নিয়মিত লেখক হিসেবে এই পরিবারের সবার জন্য নিরন্তর শুভকামনা ও ভালোবাসা জানাচ্ছি। আগামীর সকল ইতিবাচক প্রত্যয়ে এনটিভি এগিয়ে যাক দীর্ঘ পথ—এটিই আমার প্রত্যাশা।

লেখক : সহযোগী অধ্যাপক, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Advertisement