Beta

মরিনহোকে সরিয়ে ওল্ড ট্রাফোর্ডে জিদান?

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:১২ | আপডেট: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:০০

স্পোর্টস ডেস্ক

ক্লাব ফুটবলে একজন কিংবদন্তি ফরাসি তারকা জিনেদিন জিদান। খেলোয়াড় জীবনে তো সফলতা আছেই, কোচ হিসেবেও এগিয়ে রয়েছেন এই তারকা। অবশ্য কিছুদিন ধরে কোচিংয়ের বাইরে তিনি। তবে রিয়াল মাদ্রিদের এই সাবেক কোচ জানিয়েছেন, তিনি খুব শিগগিরই কোচিংয়ে ফিরে আসছেন। ধারণা করা হচ্ছে, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বর্তমান কোচ জোসে মরিনহোকে সরিয়ে ওল্ড ট্রাফোর্ডে আসতে পারেন তিনি।

রিয়াল মাদ্রিদকে টানা তৃতীয়বার চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিয়ে সরে দাঁড়ান জিদান। এর মাত্র তিন মাস পরই তিনি আবার কোচ হিসেবে ফেরার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি শিগগিরই কোচ হিসেবে ফিরে আসছি। এটাই আমি পছন্দ করি এবং সারা জীবন এটাই করতে চাই।’

জিদানের সাবেক সতীর্থ ক্লড মেকেলেলের মতে, মাঠ এবং মাঠের বাইরে জিদানের সাফল্যের সুবাদে এই সাবেক ফরাসি অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার ‘যেখানে খুশি সেখানে’ যোগদান করতে পারেন। অবশ্য ১৯৯৮ সালের ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়ের নায়ককে যেকোনো বড় দলই পেতে চাইবে।

গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, জিদান একসময় দিদিয়ের দেশামের মতো ফরাসি জাতীয় দলকে কোচিং করাতে পারেন। ইতালির জুভেন্টাসে যাবারও সম্ভাবনা আছে জিদানের। কারণ সেখানে জিদানের সাবেক শিষ্য ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো রয়েছেন। জিদানকে নিতে আগ্রহীদের মধ্যে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইনের নামও শোনা গেছে। তবে এমন কিছু হলে কোচ থমাস টুশেলের সঙ্গে চলমান চুক্তির ব্যাপারটি সাংঘর্ষিক হতে পারে। তাই এখনই পিএসজিতে যোগদান সম্ভব নয় জিদানের। 

অবশ্য জিদানের জন্য সবচেয়ে ভালো হতে পারে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগদান করা। কারণ জোসে মরিনহো মুখ থুবড়ে পড়েছেন তাঁর তৃতীয় মৌসুমের দায়িত্বে এসে। প্রিমিয়ার লিগের চারটি ম্যাচের মধ্যে মাত্র দুটি জয় এবং ম্যানেজার হিসেবে অসংলগ্ন ব্যবহারের ফলস্বরূপ বলির পাঁঠা হিসেবে মরিনহোর নামই আসছে। জিদানের বক্তব্য অবশ্যই দলটির প্রধান নির্বাহী এড উডওয়ার্ডের কানে পৌঁছাবে। কারণ দলবদলের সময়সীমার মধ্যে কার্যকর ডিফেন্ডার না পাওয়া এবং একের পর এক কাঙ্ক্ষিত খেলোয়াড় আনতে ব্যর্থ হওয়ায় ম্যানেজারের সঙ্গে শীতল সময় কাটছে তাঁর। ইউনাইটেড অবশ্যই জিদানকে আগ্রহী করার মতো একটি ক্লাব। যদি জিদান ‘দ্রুত’ তাঁর কোচিং ক্যারিয়ারে ফিরতেই চান, এই ক্লাবই তাঁর জন্য উপযুক্ত হবে।

মাঠে জিদান ছিলেন অপ্রতিরোধ্য, তেজস্বী এবং অঘটন ঘটাতে তাঁর কোনো জুড়ি ছিল না। মাঠের বাইরে তিনি যে কৌশলী, সেটা এরই মধ্যে প্রমাণ করেছেন।  

Advertisement