Beta

অবসর নিলেই মুখ্যমন্ত্রী ধোনি?

১৫ জুলাই ২০১৯, ২৩:২৩

স্পোর্টস ডেস্ক

মহেন্দ্র সিং ধোনি অবসরের পর রাজনীতিতে যোগ দিতে পারেন, এমন খবর বেশ কিছুদিন ধরেই আলোচনায়। ২২ গজকে বিদায় জানালেই ধোনি বিজেপিতে নাম লেখাতে পারেন, তা নিয়েও খবরের শিরোনাম হচ্ছে। তবে নতুন খবর হচ্ছে, ভারতের সাবেক অধিনায়ক শুধু বিজেপিতেই যোগ দিচ্ছেন না, ঝাড়খণ্ডের আসন্ন নির্বাচনে নাকি মুখ্যমন্ত্রীর পদে প্রার্থী হতে পারেন। 

সম্প্রতি ঝাড়খণ্ডের বিজেপি নেতা সঞ্জয় পাসোয়ান দাবি করেছিলেন, ধোনির সঙ্গে বিজেপির কথাবার্তা চলছে। তিনি বিজেপিতে যোগ দেবেন অবসরের পর।

বিশ্বকাপ চলাকালীন ধোনির অবসর নিয়ে গুঞ্জন উঠেছিল। পরে ধোনি নিজেই তা খণ্ডন করেন। তবে বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল থেকে ভারত ছিটকে যাওয়ার পরে বোর্ডের তরফে ধোনিকে অবসরের জন্য চাপ দেওয়া শুরু হয়েছে বলে খবর। বোর্ডের এক কর্তা সোমবারেই এ কথা জানিয়েছেন।  তিনি বলেন, ‘ধোনি সম্মানের সঙ্গে অবসর না নিলে হয়তো জাতীয় দল থেকেও বাদ পড়তে পারেন। এমন অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে, ধোনি কবে অবসর নেন সেটাই দেখার।’

এদিকে ঝাড়খণ্ডের বিধানসভা নির্বাচন আরো কিছুদিন পর। শোনা যাচ্ছে, সেই নির্বাচনে নাকি বিজেপি মহেন্দ্র সিং ধোনিকে সামনে রেখে বড় পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। প্রথমে শোনা গিয়েছিল ঝাড়খণ্ডের বিধানসভা নির্বাচনের ধোনিকে বিধায়ক করার। তবে এবার নাকি পরিকল্পনা বদলে সরাসরি ধোনিকে মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারেই বসাতে চাইছে বিজেপি। তারই ইঙ্গিত দিয়েছেন ঝাড়খণ্ডের সেই বিজেপি নেতা। সব মিলিয়ে ধোনির অবসরের জল্পনার সঙ্গেই এবার যুক্ত হলো নতুন গুজব। তা সত্যি কি না, তা সময়ই বলে দেবে।

বিজেপি নেতারা নাকি গত লোকসভার নির্বাচনের আগে থেকেই ধোনির সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন। গত বছর বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, পীযূষ গোয়েল এবং বিজেপি দিল্লি শাখার সভাপতি মনোজ তিওয়ারিকে সঙ্গে নিয়ে ধোনির বাড়িতেও গিয়েছিলেন। মনোজ তিওয়ারি নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন ধোনির সঙ্গে। সম্প্রতি সে রাজ্যের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বিজিপির সভাপতি। রাজ্যের ৮১টি আসনের মধ্যে কমপক্ষে ৬৫টিতে জেতার লক্ষ্য বিজিপির। তাই ধোনি গেরুয়া শিবিরে নাম লেখালে দলের বড় সম্পদ হয়ে উঠতে পারেন।

লোকসভা নির্বাচনের আগেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেলেন ধোনির একসময়কার সতীর্থ গৌতম গম্ভীর। দিল্লি পূর্ব কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে দাঁড়িয়ে জিতেও ছিলেন তিনি। এবার ধোনিও সে পথে হাঁটবেন কি না, সেটাই এখন দেখার।

Advertisement