Beta

‘ভারতীয় সেনাদের হাতে মার খেয়েই জঙ্গি হয় আদিল’

১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৯:০০

কলকাতা সংবাদদাতা
বাবা গুলাম হাসান দার ও আত্মঘাতী হামলাকারী আদিল আহমেদ দার। ছবি : সংগৃহীত

ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাতে মার খেয়েই জঙ্গি দলে যোগ দেয় ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী হামলাকারী আদিল আহমেদ দার। এমনটাই দাবি তাঁর পরিবারের।

গত বৃহস্পতিবার পুলওয়ামার অবন্তীপোরায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর যাত্রাবহরে আত্মঘাতী হামলা চালানো হয়। বিস্ফোরক ভর্তি একটি গাড়ি নিয়ে সেনা কনভয়ে হামলা করে জম্মু-কাশ্মীরের লেথিপোরার ২০ বছর বয়সী যুবক আদিল দার। ওই হামলায় এখন পর্যন্ত প্রায় অর্ধশত সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় আত্মঘাতী হামলাকারী আদিল আহমেদ দারের কৃষক বাবা গুলাম হাসান দার জানিয়েছেন, ‘সেনাসদস্যদের ঘরে আজ যে যন্ত্রণা, আমার ঘরেও আমরা সেই একই যন্ত্রণা ভোগ করছি।’

তিনি বলেন, ‘২০১৬ সালে স্কুল থেকে ফেরার সময় বন্ধুদের সঙ্গে আদিলকে একবার আটকে রেখে বেধড়ক মারধর করেছিল ভারতীয় সেনারা। ওর বিরুদ্ধে পাথর ছোঁড়ার অভিযোগ ছিল। সেনার হাতে মার খাওয়ার পরেই ও জঙ্গি দলে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে।’

আদিলের মা ফাহমিদা বলেন, ‘বছরখানেক আগে স্কুল থেকে ফেরার সময় আদিলকে সেনাসদস্যরা মারধর করে। তারপর থেকেই সেনাদের ওপর আদিলের রাগ ছিল। তবে কীভাবে ও জঙ্গি দলে ভিড়ে গেল তা বুঝতে পারিনি। গত বছরের মার্চ থেকে আমরা ওর খোঁজ পাইনি।’

গুলাম হাসান দার আরো বলেন, ‘আমার ছেলের মৃত্যুর জন্য দায়ী নেতারা। কাশ্মীর সমস্যার সমাধান আলোচনার মাধ্যমে না করলে এই রক্ত ঝরবেই। রাজনীতির জন্য আমাদের ছেলেরা জঙ্গি হয়ে যাচ্ছে।’ তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘ওর তো দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষায় বসার কথা ছিল। জম্মু গিয়েছিল, কিন্ত আর ফিরল না। আর ফিরবেও না আদিল।’

পুলওয়ামায় হামলার পরেই হামলার দায় স্বীকার করে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। যার পেছনে ছিল জৈশ-ই-মহম্মদের পতাকা আর সামনে সাজানো ছিলো আগ্নেয়াস্ত্র।

জম্মু-কাশ্মীরের পুলিশ জানিয়েছে, পুলওয়ামার গুন্ডিবাগে থাকতো আদিল। তার দুই ভাই রয়েছে। মাঝপথেই সে স্কুলের লেখাপড়ায় ইতি টেনে রাজমিস্ত্রি হিসাবে কাজ শুরু করে। পরে জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্য পুলিশের কাছ থেকে ছেলের জঙ্গি সংগঠনে যোগদানের কথা জানতে পারেন বাবা গুলাম দার।

Advertisement