Beta

ইরানে হামলার নির্দেশ দিয়েও পিছিয়ে গেলেন ট্রাম্প

২১ জুন ২০১৯, ১৫:৩৬

অনলাইন ডেস্ক
ছবি : সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরানে সামরিক হামলার নির্দেশ দিয়েও শেষমেশ পিছু হটেছেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে প্রভাবশালী মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক টাইমস।

আজ শুক্রবার নিউইয়র্ক টাইমসের বরাত দিয়ে বিবিসিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এ কথা জানা যায়।

নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, ইরানের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে আজ শুক্রবার ভোরের দিকে ইরানে ওই হামলা চালানোর পরিকল্পনা করা হয়। তবে দেশটির সামরিক বাহিনী বা সাধারণ মানুষের ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকি যেন কম থাকে, সেভাবেই পরিকল্পনা করা হয়।

নাম প্রকাশ না করে হোয়াইট হাউসের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে নিউইয়র্ক টাইমস জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার এক বিশেষ বৈঠকে ইরানের বেশ কিছু লক্ষ্যবস্তু, যেমন—রাডার, মিসাইল ব্যাটারি এসবে হামলার ব্যাপারে পরিকল্পনা করা হয়েছিল। অভিযানের ‘প্রাথমিক প্রস্তুতি’ শুরুও হয়ে গিয়েছিল, সে সময় প্রেসিডেন্ট সেনাবাহিনীকে নিরস্ত করেন।

‘বিমানগুলো আকাশেই ছিল, জাহাজগুলোও অবস্থান নিয়ে ফেলেছিল, কিন্তু নিষেধের ফলে কোনো ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়নি,’ জানান ওই কর্মকর্তা। এ ব্যাপারে হোয়াইট হাউসের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, পেন্টাগনের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা এরকম কোনো হামলার চালানোর ব্যাপারে সতর্ক করেন। তাঁদের মতে, এতে করে দুটি দেশের মধ্যকার উত্তেজনা চরমে পৌঁছবে এবং মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন সেনাদের নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়বে।

গতকাল প্রায় সারা দিনই জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা, কংগ্রেস নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর ওই হামলা না করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা এপি।

স্বরাষ্ট্র সচিব মাইক পম্পেও ও জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন হামলা করার পক্ষে কট্টর অবস্থান নিলেও কংগ্রেস নেতারা এমন পদক্ষেপের ব্যাপারে সতর্কতার আহ্বান জানান।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ইরান যুক্তরাষ্ট্রের একটি ড্রোন ভূপাতিত করার প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দেশটির চলমান উত্তেজনা আরো বেড়ে যায়।

ইরানের দাবি, মার্কিন গুপ্তচর ড্রোনটি তাদের আকাশসীমায় অনুপ্রবেশ করায় তা ভূপাতিত করা হয়েছে। যদিও যুক্তরাষ্ট্র দাবি করেছে, ড্রোনটি আন্তর্জাতিক আকাশসীমাতেই ছিল।

Advertisement