Beta

বুয়েটে প্রয়াত সনির নামে হলের দাবি

৩১ জানুয়ারি ২০১৯, ২৩:১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা
২০১৫ সালের জুন মাসে বুয়েটের একমাত্র ছাত্রী হলটিকে প্রয়াত শিক্ষার্থী সাবেকুন নাহার সনির নামে নামকরণের দাবি উঠলেও প্রশাসন তা কার্যকর করেনি। ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) একমাত্র ছাত্রী হলটিকে প্রয়াত শিক্ষার্থী সাবেকুন নাহার সনির নামে নামকরণের দাবি জানিয়ে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার সকালে হলের নামকরণের দাবিতে বুয়েটের উপাচার্য বরাবর তিন হাজার শিক্ষার্থীর স্বাক্ষর সংবলিত এই স্মারকলিপি জমা দেয় শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল এনটিভি অনলাইনকে বলেন, এক সপ্তাহ ধরে এসব স্বাক্ষর সংগ্রহ করা হয়েছে। যার পুরো কার্যক্রমের নেতৃত্ব দেয় বুয়েট ছাত্রলীগ।

রাসেল বলেন, এটা শুধু ছাত্রলীগের দাবি নয়, ক্যাম্পাসের সব শিক্ষার্থীর প্রাণের দাবি। ক্যাম্পাসে অধ্যয়নরত চার হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে তিন হাজারের স্বাক্ষর যুক্ত করে আমরা আমাদের দাবির কথা সর্বোচ্চ মহলকে জানিয়েছি। আশা করব, শিক্ষার্থীর আবেগের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে প্রশাসন দ্রুত সময়ের মধ্যে হলের নাম পরিবর্তন করবে।

মেহেদী হাসান আরো বলেন, উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপিটি জমা দিয়েছি। কিন্তু গতকাল উপাচার্য অফিসে ছিলেন না। তাই বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. সত্য প্রসাদ মজুমদারের কাছে স্মারকলিপিটি জিমা দিয়েছি। তিনি বিষয়টি উপাচার্যকে জানাবেন বলে আমাদের জানিয়েছেন।

মেহেদী হাসান বলেন, ছাত্রী হলটির কোনো নাম নেই। হলটি সনির নামে দেওয়া হলে তা পুরো ক্যাম্পাসে শান্তি ও সম্প্রীতির বার্তা পৌঁছে দেবে বলেও আমরা বিশ্বাস করি। আমরা চাই দ্রুত আমাদের দাবি কার্যকর করা হোক। ২০০২ সালের ৮ জুন বর্তমান বুয়েটের ইসিই ক্যাম্পাসে টেন্ডার নিয়ন্ত্রণে আধিপত্য বিস্তারের ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল ও বুয়েট ছাত্রদলের দুই পক্ষের গোলাগুলিতে স্বাপ্নিক ’৯৯ ব্যাচের ছাত্রী সাবেকুন নাহার সনি নিহত হন।

বুয়েটের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী রাশেদ রহমান বলেন, হলটি সনির নামে হলে খুবই ভালো হবে। আমাদের বোনের প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা খানিকটা পূরণ হবে। কারণ চাঞ্চল্যকর ও বহুল আলোচিত এই হত্যা মামলায় ভুক্তভোগী পরিবার এখনো ন্যায়বিচার পায়নি।

Advertisement