Beta

রাকসু নির্বাচনে ছবিসহ ভোটার তালিকা প্রণয়নের দাবি ছাত্র মৈত্রীর

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:৩০

রাবি সংবাদদাতা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (রাকসু) নির্বাচনে ছবিসহ পূর্ণাঙ্গ ভোটার তালিকা প্রণয়সহ ১০ দফা দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখার নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৩টায় রাকসু সংলাপ কমিটির সঙ্গে আলোচনায় নেতাকর্মীরা এসব দাবি জানান।

তাদের অন্য দাবিগুলো হলো- আবাসিক হলের বাইরে ভোটকেন্দ্র স্থাপন, ভোটকেন্দ্রে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা প্রদান, পরিবেশ পরিষদ গঠন করে ক্যাম্পাস ও হলগুলোতে ক্রিয়াশীল ছাত্র সংগঠনের মধ্যে সহাবস্থান নিশ্চিতকরণ, রাজনৈতিকভাবে বিতর্কিত নয় এমন শিক্ষকদের নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন, বিশেষ কোনো রাজনৈতিক দলকে আলাদা সুবিধা না দেওয়া, ক্যাম্পাসে সব ছাত্রসংগঠনকে স্বাধীনভাবে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য পরিবেশ সৃষ্টি, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার, ছাত্রসংগঠনগুলোকে ক্যাম্পাসে তাদের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সমান সুযোগ প্রদান করা, কোনো শিক্ষার্থী কিংবা নেতাকর্মীর নির্বাচনকালীন কোনো ধরনের হয়রানি না হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা ও অনিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের ছাত্রসংগঠনকে নির্বাচনের বাইরে রাখা।

সংলাপ কমিটির সভা সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর দপ্তরে সংগঠনটির সঙ্গে সংলাপে বসে রাকসু সংলাপ কমিটি। প্রায় দেড় ঘণ্টা এই সংলাপ চলে। সংলাপে সংগঠনটির রাবি শাখার আহ্বায়ক জাকির হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক জোবায়ের জোহাসহ বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। রাকসু সংলাপ কমিটির পক্ষ থেকে আহ্বায়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান, সদস্য সচিব আবু সাঈদ মো. নাজমুল হায়দার, রাকসুর কোষাধ্যক্ষ মীর ইমাম ইবনে ওয়াহেদ উপস্থিত ছিলেন।

সংগঠনটির রাবি শাখার আহ্বায়ক জাকির হোসেন বলেন, ‘আমাদের দাবিগুলোকে সংলাপ কমিটি ইতিবাচকভাবে দেখেছেন। তারা দাবিগুলোকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনার আশ্বাসও দিয়েছেন।’

রাকসু সংলাপ কমিটির আহ্বায়ক ও প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘তারা যেসব দাবি জানিয়েছে তার মধ্যে শিক্ষার্থী কিংবা নেতাকর্মীদের হয়রানির বিষয়ে পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়া হবে। তারাই পদক্ষেপ নেবে। তাদের অন্যান্য দাবিগুলো ইতিবাচক। আমরা এগুলোকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করব।’

রাকসু নির্বাচন নিয়ে সংলাপে অংশগ্রহণের জন্য ক্যাম্পাসের ক্রিয়াশীল ও রাজনৈতিক দলগুলোর নাম, গঠনতন্ত্র, নিবন্ধনপত্র আহ্বান করে সংলাপ কমিটি। দশটি সংগঠন তাদের গঠনতন্ত্র জমা দেয়। গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাবি শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সাথে আলোচনার মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সংলাপ শুরু হয়। আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি রাবি বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী ও ২০ ফেব্রুয়ারি রাবি শাখা ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের সঙ্গে আলোচনায় বসবে সংলাপ কমিটি।

Advertisement