Beta

আপনার জিজ্ঞাসা

পুরোনো কোরআন শরিফ কী করব?

২৮ জুলাই ২০১৮, ১১:১০ | আপডেট: ২৮ জুলাই ২০১৮, ১৫:৩৯

অনলাইন ডেস্ক

নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত, পরিবার, সমাজসহ জীবনঘনিষ্ঠ ইসলামবিষয়ক প্রশ্নোত্তর অনুষ্ঠান ‘আপনার জিজ্ঞাসা’। জয়নুল আবেদীন আজাদের উপস্থাপনায় এনটিভির জনপ্রিয় এ অনুষ্ঠানে দর্শকের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন বিশিষ্ট আলেম ড. মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ।

আপনার জিজ্ঞাসার ২১৪৩তম পর্বে পড়ার অযোগ্য কোরআন শরিফ থাকলে কী করণীয়, সে সম্পর্কে ই-মেইলে জানতে চেয়েছেন জাহিদ হাসান। অনুলিখনে ছিলেন জহুরা সুলতানা।

প্রশ্ন : আমাদের বাসায় অনেক পুরোনো এক জিল আল-কোরআন রয়েছে, যা পড়ার মতো অবস্থায় নেই। এখন এই কোরআন শরিফ কী করা যায়? 

উত্তর : ধ‍ন্যবাদ, গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন করেছেন। অনেক সময় দেখা যায়, কোরআনে কারিম বেশি দিন থাকতে থাকতে পাতাগুলো নষ্ট হয়ে যায় এবং পড়ার যোগ্য থাকে না। যদি এমন হয় তাহলে উত্তম হচ্ছে একটা ভালো জায়গা বেছে মাটিতে কোরআন শরিফটি পুঁতে ফেলা।

যদি এটি করতে সক্ষম না হন তাহলে পানিতেও আপনি ফেলে দিতে পারেন। যদি আপনি মনে করেন যে, মাটিতে রাখলে কেউ হয়তো উঠিয়ে ফেলতে পারে অথবা কোনোভাবে কোরআনের অবমাননা হতে পারে, সেক্ষেত্রে পুড়ে ফেলে আপনি মাটিতে পুঁতে ফেলতে পারেন, এটি জায়েজ রয়েছে।

ওসমান ইবনে আফফান (রা.) যখন কোরআনে কারিমের মুসহাবগুলো একত্র করলেন তখন যেগুলো অতিরিক্ত রয়ে গেল, দেখলেন যে, এগুলো আর কাজে লাগবে না, তখন সবগুলোকে একসঙ্গে করে পুড়ে ফেললেন। তারপর মাটিতে পুঁতে দিলেন। ওসমানের (রা.) আমল থেকে এটি আমরা জানতে পেরেছি, সুতরাং এটি করা জায়েজ রয়েছে।

কিন্তু কোরআনে কারিমের যাতে কোনোভাবে অবমাননা না হয়, এটা ডাস্টবিনে অথবা রাস্তায় ফেলা যাবে না অথবা এমন জায়গায় নিক্ষেপ করা যাবে না যেখানে কোরআনে কারিমের অবমাননা হতে পারে। কোরআন শরিফ যদি নষ্টও হয়ে যায় বা যেই পর্যায়েই থাক না কেন কোরআন যেখানে-সেখানে ফেলা যাবে না।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement