Beta

ইবোলা সংক্রমণ : ‘বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা

১৮ জুলাই ২০১৯, ১৩:০০

অনলাইন ডেস্ক

আফ্রিকার ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোতে প্রাণঘাতী রোগ ইবোলার প্রাদুর্ভাবকে একটি ‘বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

বিবিসির বরাত দিয়ে সংবাদ সংস্থা ইউএনবির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সম্প্রতি জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচওর প্রধান টেড্রোস আদানম গিব্রাইয়াসুস ইবোলাকে ‘আন্তর্জাতিক পর্যায়ের জনস্বাস্থ্য সংকট’ বলে ঘোষণা করেন।

বিশ্ব সংস্থার পক্ষ থেকে ইবোলা নিয়ে সতর্কবার্তা এবারই প্রথম নয়, আগেও চারবার জরুরি সতর্কবার্তা দিয়েছে সংস্থাটি। যার একটি ছিল, পশ্চিম আফ্রিকাতে ২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত চলা ইবোলার প্রাদুর্ভাবে ১১ হাজার মানুষের মৃত্যুর পর।

ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোতে এবার ইবোলা সংক্রমণে এ পর্যন্ত এক হাজার ৬০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

গিব্রাইয়াসুস বলেন, ‘বিশ্ববাসীর নজর দেওয়ার সময় এসেছে।’ ডব্লিউএইচওর এ ঘোষণার ফলে সেটি হয়তো কিছুটা সম্ভব হবে বলে তিনি নিজেই মন্তব্য করেছেন।

ইবোলার লক্ষণ কী?

ইবোলা একটি ভাইরাস। এতে আক্রান্ত হলে হঠাৎ করে জ্বর দেখা দেয়। খুব দুর্বল লাগে। মাংসপেশিতে খুব ব্যথা হতে থাকে। গলায়ও খুব ব্যথা হয়।

এর পরবর্তী ধাপ হলো বমি ও ডায়রিয়া দেখা দেওয়া। শরীরের ভেতরের অঙ্গপ্রত্যঙ্গে রক্তপাত হতে থাকে।

সরাসরি আক্রান্ত ব্যক্তির কেটে যাওয়া ত্বক, তার মুখ, নাক, বমি, রক্ত, মল বা শরীরের অন্য ধরনের তরল কোনো পদার্থের সংস্পর্শে এলে নতুন করে কেউ আক্রান্ত হতে পারে।

এটি কি অন্যান্য দেশেও ছড়াতে পারে?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, প্রতিবেশী দেশগুলোতে এটি ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা খুবই বেশি। উগান্ডায় এরই মধ্যে রোগটি কয়েকজনের মধ্যে শনাক্ত হয়েছে।

ঝুঁকিতে রয়েছে রুয়ান্ডা, কারণ দেশটির সঙ্গে ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গোর সীমান্তবর্তী অঞ্চল গোমাতে ইবোলা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

তবে এখনই সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়ার ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি।

Advertisement