Beta

কাশ্মীরিদের প্রতি সংহতি জানিয়ে শূন্যরেখায় পাক সেনাপ্রধানের ঈদ

১২ আগস্ট ২০১৯, ২২:৩৯

অনলাইন ডেস্ক
কাশ্মীরিদের প্রতি সংহতি ও সহমর্মিতা জানাতে শূন্যরেখার একটি সেনাব্যারাকে ঈদুল আজহার দিনটি কাটিয়েছেন পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। ছবি : সংগৃহীত

সামরিক ও ভৌগোলিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ শূন্যরেখা সংলগ্ন একটি সেনাব্যারাকে সেনাদের সঙ্গে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া। সেখানে তিনি কাশ্মীর ইস্যুতে বক্তব্যও দিয়েছেন।

আজ সোমবার পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির বরাত দিয়ে পাকিস্তানের এক্সপ্রেস ট্রিবিউন অনলাইনে এ খবর দেওয়া হয়। ‘বাগ’ নামক সেক্টরের সেনাদের সঙ্গে তিনি ঈদুল আজহার দিনটি কাটিয়েছেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কাশ্মীরিদের প্রতি সংহতি ও আন্তরিক সহমর্মিতা জানাতে পাক সেনাপ্রধান জেনারেল জাভেদ সেখানে ঈদ কাটাতে গিয়েছেন।

সেখানে বক্তৃতাকালে পাক সেনাপ্রধান বলেন, কাশ্মীরে ভারতের অবৈধ কর্মকাণ্ডকে আড়াল করতে ভারত বিশ্ববাসীর নজর অন্যদিকে নিতে চাইছে। এবং এটা কোনোভাবেই হতে দেওয়া হবে না। এটা করতে ভারত যেকোনো কিছুই করবে। আমরা সেই সুযোগ দেব না।

সেনাদের উদ্দেশে জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া বলেন, ‘আমাদের ধর্ম আমাদেরকে একই সঙ্গে শান্তি ও ত্যাগের শিক্ষা দেয়। আমরা আমাদের কাশ্মীরি ভাইবোনদের পাশে থাকব। এজন্য আমাদের যতটা সময় ও ত্যাগ স্বীকার করতে হয় তা করব, এবং এই চ্যালেঞ্জে সমান গুরুত্ব প্রমাণ করে হবে ইনশা আল্লাহ।’

গত ৫ আগস্ট ভারতের সংসদে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করে সংবিধান থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করা হয়। এজন্য ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে বিপুল সংখ্যক বাড়তি সামরিক বাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন ও কাশ্মীরিদের জনজীবনের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছে ভারত।

ভারত সরকারের এই সিদ্ধান্তের ফলে প্রতিবেশী দুটি পরমাণু অস্ত্রধারী দেশের মধ্যে আবারও উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এর আগে গত এপ্রিলের শেষদিকে কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতীয় আধাসামরিক বাহিনীর গাড়িবহরে সন্ত্রাসী হামলাকে কেন্দ্র করে ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে হামলা, পাল্টাহামলা পর্যন্ত হয়। সে সময় এক রকম যুদ্ধসম্ভাবনা তৈরি হয়ে যায়।

Advertisement