Beta

যানজট নিরসনে সমন্বিত উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে : আইজিপি

১৩ জুন ২০১৮, ১৬:৪৪

আইজিপি ড. জাবেদ পাটোয়ারী আজ বুধবার দুপুরে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। ছবি : এনটিভি

ঈদে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে এবং তাঁদের সার্বিক নিরাপত্তায় পুলিশের পক্ষ থেকে সমন্বিত উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. জাবেদ পাটোয়ারী।

আজ বুধবার দুপুরে গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তায় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের যানবাহন চলাচল ও যাত্রী পরিবহনসহ সার্বিক বিষয় পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন আইজিপি।

আইজিপি জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘ঢাকা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার যে রাস্তাগুলো আছে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক প্রতিটি মহাসড়কেই আমরা বিশেষ আয়োজন করেছি। আমাদের সাধারণ জনবলের অতিরিক্ত জনবল দিয়েছি এবং সমন্বিতভাবে আমরা জেলা পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশ, রেঞ্জের রিজার্ভ ফোর্স সবাই মিলেই কিন্তু ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

আইজিপি বলেন, ‘আপনারা দেখেছেন এখানে একটি কন্ট্রোলরুম করেছি, বিভিন্ন জায়গায় আমরা কন্ট্রোলরুম করেছি, যাতে আমরা অন্যদের সঙ্গে সমন্বয় করতে পারি। এর বাইরে আমাদের কিছু ওয়াচ টাওয়ার আছে, চেকপোস্ট আছে। সবকিছু মিলিয়ে আমরা মনে করছি, আমরা যে ব্যবস্থা নিয়েছি, তাতে নির্বিঘ্নে মানুষ তাদের গ্রামে যেতে পারবে। ঈদ সঠিকভাবে করতে পারবে বলে আমরা আশা করছি।’

‘তবে জলাবদ্ধতার কারণে মহাসড়কের সবটুকু অংশ আমরা ব্যবহার করতে পারছি না। পুরো রাস্তার অর্ধেকজুড়েই ড্রেনের নোংরা পানি, আমরা যেখানে দাঁড়িয়ে আছি, আপনারা বুঝতেই পারছেন সেখানে নোংরা পানির গন্ধ। আসলে ড্রেনেজ সিস্টেমটা ভালো করার প্রয়োজন আছে বলে আমাদের মনে হয়। নিশ্চয়ই তাঁরা চেষ্টা করছেন। কিন্তু সেখানেও একটা ধারণক্ষমতার বিষয় আছে। যখন অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত হয়, তখন হয়তো এত তাড়াতাড়ি ড্রেনটি কাজ করতে পারে না বলে মনে হচ্ছে। আমি আমাদের সহকর্মীদের অনুরোধ করব, বিষয়টি দেখবেন। কিন্তু আমি আগেই বলেছি এখানে এনফোর্সমেন্টের কথা। আমরা ছাড়াও অনেকেই এনফোর্স করে। রাস্তার এনফোর্সমেন্টের দায়িত্ব একজনের, মেইনটেন্যান্সের দায়িত্ব আরেকজনের। উনারা যদি সমন্বিতভাবে কাজ করে, পানি যাতে দ্রুতগতিতে বের হয়ে যেতে পারে, তাহলে আপনি পুরোপুরি রাস্তাটি ব্যবহার করতে পারবেন। রাস্তাটি যতটুকু চওড়া আছে, এ মুহূর্তে পুরোটা আমরা ব্যবহার করতে পারছি না,’ বলছিলেন আইজিপি।

জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, ‘প্রতিটি পরিবহন সেক্টরের সঙ্গে আমরা বসছি, পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে বসছি এবং আমাদের যে হাইওয়ে কর্তৃপক্ষ, তারা নিয়মিতভাবে তাদের সঙ্গে বসছে। রাতে যাঁরা ভ্রমণ করছেন, তাঁদের জন্য পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করেছি। সিভিল পোশাকে, ইউনিফর্ম পরে আমাদের লোকজন আছে। আমরা নিশ্চিতভাবে বলতে পারি, যে ব্যবস্থা নিয়েছি সেই ব্যবস্থাটুকু যথার্থ। এর বাইরে যদি ব্যবস্থা নিতে হয়, তাহলে সেটি আমরা নেব।’

এ ছাড়া আইজিপি মলম পার্টি ও ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘এ পর্যন্ত বেশ কয়েকটি গ্যাংকে আমরা ধরেছি। এ ক্ষেত্রে যাত্রীদেরও নিজেদের সচেতন হওয়া প্রয়োজন। নিজেদের নিরাপত্তা আগে নিজেদেরই নিতে হবে।’

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement