Beta

বাবা জানালেন, মাথা ও হাত-পা বিহীন লাশটি তাঁর ছেলের

০৮ মার্চ ২০১৯, ১৬:৪৫

গতকাল বৃহস্পতিবার খুলনা মহানগরের শেরেবাংলা রোড ও ফরাজীপাড়া লেন থেকে বস্তাবন্দী খণ্ডিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ছবি : পিবিএ

বেড়ানোর কথা বলে নিজের মোটরসাইকেলে করে খুলনায় গিয়েছিলেন সাতক্ষীরার হাবিবুর রহমান সবুজ (২৬)। এরপর থেকেই তাঁর কোনো খোঁজ পাচ্ছিল না পরিবার।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে খুলনা মহানগরের শেরেবাংলা রোডে পলিথিনে মোড়ানো অজ্ঞাত এক যুবকের হাত-পা ও মাথাবিহীন লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ফরাজীপাড়া লেন থেকে দেহের বাকি অংশ উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিকভাবে ওই যুবকের ব্যাপারে কোনো কিছু জানা যাচ্ছিল না। তবে আজ শুক্রবার পাওয়া গেলো যুবকের নাম ঠিকানা। সাতক্ষীরা থেকে খুলনায় বেড়াতে যাওয়া নিখোঁজ হাবিবুর রহমান সবুজের লাশই ছিলো এটি।

আজ ছেলের লাশ শনাক্ত করলেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ওমরাপাড়া গ্রামের আবদুল হামিদ।

সবুজ রাজধানীর মিরপুর বাংলা কলেজের ছাত্র ছিলেন। কয়েকদিন আগে ক্যানসারে আক্রান্ত মা জাহানারা খাতুনকে দেখতে সাতক্ষীরায় নিজেদের বাড়িতে যান তিনি।

সবুজের বাবা আবদুল হামিদ জানান, গত মঙ্গলবার সকালে সবুজ তাঁর মাকে নিজের মোটরসাইকেলে করে খুলনায় বেড়াতে যাওয়ার কথা বলেন। পরদিন ফিরে আসার কথাও জানান সবুজ। এরপর দুই দিন পার হলেও ফিরে না আসায় সাতক্ষীরা সদর থানায় একটি জিডি করেন তাঁর বাবা।

এর আগে খুলনার শেরে বাংলা রোড ও ফরাজীপাড়া লেন থেকে পাওয়া যায় সবুজের বিচ্ছিন্ন লাশ। আজ ওই লাশটি নিজের ছেলে সবুজের বলে শনাক্ত করেন বাবা আবদুল হামিদ। পরে ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি নিয়ে যাওয়া হয় খুলনা সদর হাসপাতাল মর্গে।

সবুজের বাবা আরো জানান, গতকাল সবুজের খোঁজ জানতে খুলনায় ফোন করা হলে সাদি নামের এক ব্যক্তি ফোনটি ধরে জানান, সবুজ মোস্তফা মামার সঙ্গে যশোর গেছে। এরপর থেকে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

আবদুল হামিদ আরো জানান, খুলনায় সবুজের ব্যবসায়িক লেনদেন ছিল। এ নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে একটি মামলাও হয়। এই মামলায় কিছুদিন আগে জেলও খেটেছিলেন সবুজ। ব্যবসায়িক লেনদেনকে কেন্দ্র করে তাঁর ছেলেকে খুলনায় কৌশলে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন আবদুল হামিদ।

এদিকে আজ শুক্রবার সকালে সবুজের ফোন থেকে সাতক্ষীরায় তাঁদের বাড়িতে একটি ফোন আসে। ফোনে এক ব্যক্তি বলেন, ‘সবুজকে আমরা বেঁধে রেখেছি। ছয় লাখ টাকা দিলে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হবে।’

পুলিশ এ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে বলে জানিয়েছেন সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান।

সবুজের লাশ নিতে খুলনায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে বলেও জানান ওসি।

Advertisement