Beta

এবারের বাজেটে কোনো পণ্যের ভ্যাট ও দাম বাড়বে না : অর্থমন্ত্রী

১৪ মে ২০১৯, ২০:৫২

অনলাইন ডেস্ক
মঙ্গলবার রাজধানীতে এনবিআর ও এফবিসিসিআইয়ের সঙ্গে সভা শেষে ব্রিফিংয়ে বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ছবি : এনটিভি

এবারের বাজেটে কোনো পণ্যের ভ্যাট এবং দাম বাড়বে না বলে আশ্বাস দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। একই সঙ্গে তিনি জানান, ১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হবে।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পরিকল্পনা কমিশনে এনবিআর এবং এফবিসিসিআইয়ের সঙ্গে সভা শেষে ব্রিফিংয়ে অর্থমন্ত্রী এসব কথা জানান।

ভ্যাট আইন কার্যকর হওয়ার কথা জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, এ নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আর কোনো ভুল বোঝাবুঝি নেই। কিছু বিষয় ভুল বোঝাবুঝি ছিল, তবে আলোচনার মাধ্যমে সেই দূরত্বের অবসান হয়েছে।

ব্যবসায়ীদের আপত্তির মুখে দুই বছর পিছিয়ে গিয়েছিল নতুন ভ্যাট আইনের বাস্তবায়ন। সেই কালক্ষেপণের পর আগামী ২০১৯-২০ অর্থ বছরেই ভ্যাট আইনের বাস্তবায়নে যেতে চায় সরকার।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ীরা যা চেয়েছিলেন তার সবকিছুই কিন্তু আমরা ইনক্লুড করেছি। উনাদের একটি কথা ছিল, আমরা চূড়ান্ত করার পর উনাদের দেখানোর সুযোগ দেব। কিন্তু ভ্যাট আইনটি এমন একটি আইন যা বাজেটে পাস না করা পর্যন্ত আমরা যা করলাম সেটা নিয়ে আলোচনা করা যায় না। টেকনিক্যাল ডিফিকাল্টির কারণে আমরা সেটা করতে পারিনি।

মুস্তফা কামাল বলেন, ভ্যাট আইনটি বাস্তবায়ন করতে আমাদের অনন্তকাল লাগবে। নতুন নতুন আইটেম আসবে, এটা চলমান থাকবে। আমরা জুলাইয়ের ১ তারিখ থেকে শুরু করব।

১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হলেও পণ্যের দামে তার কোনো প্রভাব পড়বে না বলেও আশ্বাস দেন অর্থমন্ত্রী।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূইয়া বলেন, বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় যদি আরো কোনো সমস্যা থাকে আমরা আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করে নেব। এক বছরই তো শেষ না, পরেও সংস্কারের সুযোগ আছে।

এফবিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ট্যাক্স সিস্টেমটাই হবে এরকম যাতে যিনি ট্যাক্স দিচ্ছেন উনি এটার কোনো ব্যথা পাবেন না কিন্তু ট্যাক্স দেবেন। সিস্টেমটাই আমরা ওইভাবে ডেভেলপ করছি। অর্থমন্ত্রী বলেছেন, কোনো আইটেমে আমাদের ট্যাক্স বাড়বে না বরঞ্চ কিছু কিছু আইটেমে কমবে। সুতরাং আমরা তো সেটাই চেয়েছি।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়, ভবিষ্যতে ভ্যাটসহ কর ব্যবস্থায় যেকোনো প্রয়োজনীয় সংস্কারের ক্ষেত্রে এনবিআর ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করা হবে।

Advertisement