Beta

খালেদা জিয়া কিছু খেতে পারছেন না : নজরুল ইসলাম খান

১৮ মে ২০১৯, ২২:৩১

নিজস্ব সংবাদদাতা
রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত স্মরণ সভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিলে শনিবার বক্তব্য দেন নজরুল ইসলাম খান। ছবি : এনটিভি

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, গত দুই-তিন দিন ধরে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কিছু খেতে পারছেন না। মাঝে মধ্যে একটু লবণ জাউ খাচ্ছেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, খালেদা জিয়ার ৭৩-৭৪ বছর বয়স। তিনি আমার চাইতেও বয়সে বড়। এই বৃদ্ধ বয়সে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না থাকায় তাঁর জিহ্বায় কামড় লেগে ঘাঁ হয়ে গেছে। তিনি খুব কষ্টে দিন পার করছেন। আমরা তাঁর জন্য দোয়া করব, আল্লাহ যেন তাঁকে সুস্থ করে তোলেন।

শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত স্মরণ সভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিলে নজরুল ইসলাম খান এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাফরুল হাসানের সুস্থতা কামনা এবং ধানমন্ডি থানা শ্রমিক দলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শহীদ বাবুল সরদারের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, শ্রমিক দল আমার নিজের হাতে গড়া। এমনকি শ্রমিক দলের প্রথম কাগজটাও আমার হাতে লেখা। সেই দলের একজন কর্মীর স্বাভাবিক মৃত্যুর কথা শুনলেও কতটা কষ্ট লাগে তা বুঝানো যাবে না। আর সেখানে বাবুল শিকদারের মতো  নেতাকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা মেনে নেওয়া যায় না।

বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, কেন যেন বাবুল আমাকে খুব ভালোবাসতো। মৃত্যুর তিন দিন আগেও তিনি আমাকে তাঁর  লোকজন নিয়ে আমার গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছেন।

নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা চাই বাবুল শিকদারের প্রকৃত হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। আজ না হোক কাল কিংবা পরশু হলেও বাবুল শিকদারের হত্যাকারীদের বিচার হবেই ইনশা আল্লাহ।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শ্রমিক দলের সভাপতি কাজী মো. আমির খসরুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম বাদলের সঞ্চালনায় এতে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, বিএনপির সহশ্রম বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির খান, শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আনোয়ার হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন, ঢাকা মহানগর উত্তর শ্রমিক দলের সভাপতি জুলফিকার মতিন প্রমুখ।

Advertisement