Beta

গৃহকর্মীর দাওয়াত রাখলেন মাশরাফি

২৪ আগস্ট ২০১৯, ২০:২৯

অনলাইন ডেস্ক
নালিতাবাড়িতে গৃহকর্মীর বাড়িতে যান মাশরাফি বিন মুর্তজা। ছবি : সংগৃহীত

জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ও সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজার বাসায় কাজ করেন টুনি। ওই গৃহকর্মীর গ্রামের বাড়ি শেরপুরের নালিতাবাড়ী উপজেলায়। টুনি প্রায়ই মাশরাফিকে নিজেদের বাড়িতে যাওয়ার জন্য দাওয়াত দিতেন।

গতকাল শুক্রবার মাশরাফি টুনির সেই ইচ্ছা পূরণ করলেন। উপজেলার যোগানিয়া কাচারি মসজিদ সংলগ্ন টুনির বাবা আক্কাছ আলীর বাড়িতে বেড়াতে যান ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি।

এ নিয়ে এলাকায় হুলস্থুল পড়ে যায়। বিষয়টি প্রথমদিকে গোপন থাকলেও নিভৃত পল্লীতে দুটি মাইক্রোবাসে ঢাকা থেকে আসা অতিথিদের এবং অধিনায়ক মাশরাফির আগমনের বিষয়টি ছড়িয়ে পড়ে। যে কারণে লোকজনের ভিড় সামলেতে বেগ পেতে হয়। মাত্র আড়াই ঘণ্টা অবস্থানের পর মাশরাফিকে শেরপুর ত্যাগ করতে হয়। বার্তা সংস্থা ইউএনবি ওই তথ্য জানায়।

যোগানিয়ার সেই অজপাড়াগাঁয়ে মাশরাফিকে দেখতে ছুটে যাওয়াদের মধ্যে নালিতাবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মুকছেদুর রহমান লেবুও ছিলেন।

অধিনায়ক মাশরাফির আগমনের বিষয়টি আশেপাশের লোকজন জানতেন না। টুনির বাবা-মা বিষয়টি জানলেও তাঁরা মাশরাফিদের আগমনের বিষয়ে কাউকেই কিছু জানাননি। তবে তারা মাশরাফিদের জন্য আপ্যায়নের ব্যবস্থা করে রেখেছিলেন।

মাশরাফির জন্য করা আয়োজনে ছিল ভাত, পটলভাজা, মাছ, মুরগির মাংস ও গরুর মাংস। শেষে দই ও মিষ্টি।

চেয়ারম্যান মুকছেদুর রহমান অধিনায়ক মাশরাফির আচরণ ও ব্যবহারে মুগ্ধতা প্রকাশ করে বলেন, ‘বাসার কাজের মেয়ে এবং সাবেক নিরাপত্তা কর্মীকে খুশি করতে মাশরাফির মতো এমন একজন সেলিব্রেটি মানুষ এমন অজপাড়াগাঁয়ে সস্ত্রীক এসেছেন। টুনির বাবা আক্কাছ আলী ক্রিকেট তারকা মাশরাফির বাসার নিরাপত্তা কর্মী থেকে বিদায় নিলেও তাঁর পরিবারের প্রতি মাশরাফির দারুণ মমতা এবং নানা সহযোগিতা বজায় রেখেছেন। তিনি আক্কাছ আলীকে চিকিৎসা সহায়তা, মাথাগোজার জন্য গ্রামের বাড়িতে একটি হাফবিল্ডিং টিনশেড ঘর করে দিয়েছেন। সর্বোপরি মাশরাফি টুনির ভবিষ্যৎ দায়-দায়িত্ব নিয়েছেন। এখানে না এলে বিষয়টি আমরা জানতেই পারতাম না। সত্যিই ম্যাশ দ্যা রিয়েল ক্যাপ্টেন, স্যালুট হিম।’

এবার ঈদুল আজহাতে মাশরাফির বাসাতে কাটলেও ঈদের পর গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসার ইচ্ছে ছিল টুনির। আর তাই সেই ইচ্ছা পূরণে কেবল টুনিকে পাঠাননি, নিজের পরিবারের সদস্য নিয়েই টুনির বাবার গ্রামের বাড়ি নালিতাবাড়ীর নিভৃত পল্লীতে হঠাৎ করেই চলে আসেন মাশরাফি।

শুক্রবার জুমার নামাজ শেষ হওয়ার আধা ঘণ্টা পরই হঠাৎ দুটি গাড়ি নিয়ে টুনিদের বাড়িতে হাজির হন টুনিসহ মাশরাফি পরিবারের সদস্যরা।

স্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী শাহরিয়ার আমিন সিফাত জানান, ঢাকার মিরপুর এলাকায় একটি হাউজিং অ্যাপার্টমেন্টে নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে নিয়োজিত থাকায় আক্কাছ আলীর সাথে পরিচয় হয় ওই অ্যাপার্টমেন্টের একটি ফ্ল্যাটে বসবাসকারী ক্রিকেট তারকা মাশরাফি বিন মুর্তজার। ওই পরিচয়সূত্রে প্রায় ৮ বছর আগে হতদরিদ্র আক্কাছ আলীর মেয়ে টুনিকে তার বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজে নেন মাশরাফি। বয়স আর শারীরিক অসুস্থতার কারণে আক্কাছ আলী ওই অ্যাপার্টমেন্ট থেকে বিদায় নিলেও মাশরাফির বাসাতেই রয়ে গেছে তার মেয়ে টুনি। দীর্ঘ ৮ বছর সময়কালে মাশরাফি ও তার পরিবারও টুনিকে এখন তাদের পরিবারের একজন মনে করেন এবং সেভাবেই তার প্রতিপালন করে আসছেন ও সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন।

এদিকে মাশরাফি ভক্ত জনতার ভিড় আর গরমের কারণে দ্রুত পরিবারের সবাইকে নিয়ে মাশরাফিকে গাড়িতে উঠতে হয়। ফলে আড়াই ঘণ্টার মাথায় ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত মাশরাফিকে বিদায় নিতে হয়।

Advertisement