কী ঘটে সিজোফ্রেনিয়া রোগ হলে?

৩০ এপ্রিল ২০১৯, ১৬:৩১

ফিচার ডেস্ক
সিজোফ্রেনিয়া রোগের বিষয়ে আলোচনা করেছেন অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আজিজুল ইসলাম ও ডা. সাখাওয়াৎ হোসেন। ছবি : সংগৃহীত

সিজোফ্রেনিয়া একটি জটিল মানসিক রোগ। এই রোগ হলে রোগীর মধ্যে বাস্তবতাবোধ থাকে না, হেলুশিনেশন হয়, রোগী গায়েবি আওয়াজ শোনে।  এ রকম বিভিন্ন বিষয় ঘটে।

সিজোফ্রেনিয়া রোগের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এনটিভির নিয়মিত আয়োজন স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানের ৩৪২২তম পর্বে কথা বলেছেন অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আজিজুল ইসলাম। বর্তমানে তিনি আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের মনোরোগ বিদ্যা বিভাগে বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত।

প্রশ্ন : সিজোফ্রেনিয়া কী? এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের আচরণ কেমন হয়?

উত্তর : প্রথমে আমি এনটিভিকে ধন্যবাদ দিই, মানসিক রোগের ওপর এই অনুষ্ঠানটি করার জন্য। সিজোফ্রেনিয়া সবচেয়ে জটিল ও কঠিন মানসিক রোগ। এটি সাইকোটিক ডিজঅর্ডার। সাইকোটিক ডিজঅর্ডার হলো সেই রোগ, যেখানে রোগীর অন্তর্দৃষ্টি থাকে না। রোগী মনে করে না সে কোনো রোগে ভুগছে। এই জন্য সে চিকিৎসকের কাছে যায় না। তার বাস্তবতাবোধ থাকে না। এ সব রোগ সাধারণত ভ্রান্ত বিশ্বাস তৈরি করে। যা ঘটেনি, যা নেই, এমন জিনিস বিশ্বাস করে, আর অলিক প্রত্যক্ষণ বা হেলুসিনেশনে ভোগে, গায়েবি আওয়াজ শোনে। তখন তার আচার- আচরণে পরিবর্তন হয়ে যায়। সিজোফ্রেনিক রোগীগুলো অনেক সময় সামাজিকভাবে একাকী হয়ে যায়। আর কারো সঙ্গে মিশতে জানে না বা মিশতে পারে না। তার আবেগ-অনুভূতির মধ্যেও ব্যতিক্রম ঘটে।

সিজোফ্রেনিয়া এমন একটি রোগ, যেখানে তার মন ও মনন, চিন্তাশক্তি, অনুভূতি শক্তি, তার চলৎশক্তি, ইচ্ছে শক্তি অর্থাৎ তার সকল প্রকার মনের শক্তিতে ব্যত্যয় হয়, বৈকল্য ঘটে। তার নিজের তার ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকে না। সে মনেই করে না, তার কোনো রোগ রয়েছে। এই জন্য রোগী বলে যে আমার কী হলো, আমাকে আবার চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে কেন। সে একা একা হাসছে, সে কানে আওয়াজ শুনছে, সেই আওয়াজ শুনে বিড়বিড় করে কথা বলছে। কিন্তু সে তো মনে করে না এটা কোনো রোগ।