Beta

সুপার ওভারে সুপার জয় মুশফিকের চিটাগংয়ের

১২ জানুয়ারি ২০১৯, ১৮:১০ | আপডেট: ১২ জানুয়ারি ২০১৯, ২২:৩৪

স্পোর্টস ডেস্ক

জয়ের জন্য এক বলে এক রান প্রয়োজন ছিল, কিন্তু পারলেন না চিটাগং ভাইকিংসের ব্যাটসম্যানরা। বিপিএলে খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে ম্যাচে এই এক রান তুলতে গিয়েই রান আউটের ফাঁদে পড়েন রবি ফ্রাইলিঙ্ক। চিটাগংয়ের এই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান ব্যর্থ হওয়ায় ম্যাচ টাই হয়ে যায়। খেলা গড়ায় সুপার ওভারে। আর সেখানে এক রানে জয় পেয়েছে মুশফিকুর রহিমের চিটাগং।

সুপার ওভারে প্রথমে ব্যাট করে চিটাগং গড়ে ১১ রান। এর জবাবে খুলনা ১০ রান করলে, আরেকটি হারের হতাশা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে মাহমুদউল্লাহর দলকে। আসরে এটি খুলনার টানা চতুর্থ হার। আর চিটাগং তৃতীয় ম্যাচে দ্বিতীয় জয় পেয়েছে।

বিপিএলের ইতিহাসে এটি প্রথম সুপার ওভার। এই ম্যাচ জিতে মুশফিকের চিটাগং ইতিহাসের অংশ হয়েছে।

আজ শনিবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে খুলনা করে ১৫১ রান। জবাবে চিটাগংয়ের ইনিংসও থেমে যায় সমান রানে। তাই নিষ্পত্তির জন্য খেলা গড়ায় সুপার ওভারে।

যদিও ম্যাচে ইয়াসির আলী (৪১) ও মুশফিকুর রহিমের (৩৪) ব্যাটিং দেখে একপর্যায়ে মনে হয়েছিল সহজেই জিতবে চিটাগং। কিন্তু শেষ দিকে দ্রুত কয়েকটি উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় তারা। অবশ্য শেষ পর্যন্ত জয়ের উল্লাস তারাই করে। 

এর আগে খুলনা টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৪১ রানে দুই ওপেনারের উইকেট হারিয়ে বসে। এর পরই তৃতীয় উইকেটে দাউদ মালন ও মাহমুদউল্লাহ দারুণ একটি পার্টনারশিপ গড়ে দলকে ভালো রান গড়ে দিতে রাখে মূল্যবান অবদান।

মালান ৪৩ বলে ৪৫ রান করেন। আর অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ খেলেন ৩৩ রানের চমৎকার একটি ইনিংস। এর আগে জুনায়েদ সিদ্দিকী ২০ ও পল স্টারলিং ১৮ রান করেন।

চিটাগং বোলারদের মধ্যে তরুণ নাঈম হাসান দুর্দান্ত বল করেছেন। নাঈম চার ওভার বল করে মাত্র ১৬ রান দিয়ে এক উইকেট তুলে নেন। এ ছাড়া সানজামুল ইসলাম দুটি এবং আবু জায়েদ রাহি ও খালেদ আহমেদ পান একটি করে উইকেট।

ইউটিউবে এনটিভির জনপ্রিয় সব নাটক দেখুন। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের চ্যানেলটি:

Advertisement